উল্লাপাড়ার দূর্গানগর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্বে ঘর দেয়ার নামে টাকা নেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সিরাাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার দূর্গানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আঃলীগ নেতা আফছার আলীর বিরুদ্বে সরকারী অনুদানের ঘর দেয়ার নামে দুঃস্থের কাছ থেকে টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় প্রতারিত দুঃস্থরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ প্রশাসনের বিভিন্ন দফতর বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,উপজেলার দূর্গানগর ইউনিয়নের বালসাবাড়ি গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের বিধবা স্ত্রী জোবেদা খাতুন কে সরকারী অনুদানের বিনামূল্যের ঘর দেয়ার কথা বলে স্থানীয় ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিনের মাধ্যমে অফিস খরচের নাম করে ১৫ হাজার টাকা ঘুষ নেন ইউপি চেয়ারম্যান আফছার আলী। একই কায়দায় ইউনিয়নের মরিচা গ্রামের শান্তা মোল্লার প্রতিবন্ধি ছেলে আব্দুল আলিমকে সরকারী অনুদানের ঘর দেয়ার নামে ২০ হাজার টাকা নেন চেয়ারম্যান আফছার আলী। এ ঘটনায় ১৩ মে প্রতারিতরা উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ প্রশাসনের বিভিন্ন দফতর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। তাদের অভিযোগটি আমলে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতা মোঃ মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়াকে আহ্বায়ক করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। কমিটির অন্য সদস্যরা হচ্ছে উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ আব্দুল মোতালেব ও উপজেলা সমবায় কর্মকতা মোঃ মারুফ হোসেন।

উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃআরিফুজ্জান জানান,দূর্গানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্বে একাধিক বিষয়ে অভিযোগ এসেছে। এর মধ্যে একটি বিষয়ে ইতিমধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বাকী বিষয়গুলো নিয়ে শিঘ্রই ওই ইউনিয়নে সরকারী সকল সুবিধাভোগীদের নিয়ে গণ শুনানী করা হবে। বাকী প্রকল্পগুলোর বিষয়ে আলাদা আলাদা তদন্ত করে তথ্য প্রমান পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দূর্গানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আঃলীগের সাধারন সম্পাদক আফছার আলীর বিরুদ্বে অভিযোগ,তিনি এই ইউনিয়নে দুঃস্থদের সরকারি সকল সুবিধার বিপরীতে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়েছেন। টাকা ছাড়া এই ইউনিয়নে সরকারী কোন সুবিধাই পাচ্ছেন না। একই সাথে সরকারি প্রতিটি প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতি করে শুন্য থেকে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। উল্লাপাড়া পৌর শহরে কোটি কোটি টাকার মূল্যের একাধিক বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। নিজ গ্রাম সহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে নামে বে নামে বিপুল পরিমান আবাদী জমি রয়েছে বলে অভিযোগ আছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আফছার আলী উল্লেখিত অভিযোগ গুলো অস্বীকার করে বলেন,তার পরিষদের কতিপয় সদস্য তার বিরুদ্বে মিথ্যা অভিযোগ করে তার সম্মানহানীর চেষ্টা করছে।

পুরাতন বার্তা…

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
© All rights reserved | Jamunar Barta

Desing & Developed BY লিমন কবির