জীবন যাচ্ছে কেটে জীবনের নিয়মে

অন্তত বিগত শতাব্দীতে মনুষ্য জাতি এমন বিপর্যয়কর অবস্থার মধ্য দিয়ে যায়নি—শতাব্দীর দুটি বিশ্বযুদ্ধকে মাথায় রেখেও এটা নিশ্চিত করে বলা যায়। বিশ্বযুদ্ধগুলোর ভয়াবহতা প্রকট আকার ধারণ করেছিল মূলত যুদ্ধের মূল পক্ষ দেশগুলোর মধ্যে। আপাতদৃষ্টে নিরীহ বা অনেকটা বাধ্য হয়ে পক্ষ অবলম্বনকারী দেশগুলোতে ধ্বংসযজ্ঞের মাত্রা তুলনামূলকভাবে কম ছিল। বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম বৈশিষ্ট্য ছিল, সেখানে পক্ষ চেনা এবং তার সামরিক সক্ষমতাসহ সবকিছু ছিল প্রতিপক্ষের নখদর্পণে। আর প্রতিপক্ষের সক্ষমতার ওপর ভিত্তি করেই রণকৌশল সাজানো, এমনকি মিত্র দেশ সন্ধানের কাজটি সম্পাদন করা হতো।

আজ আমাদের অহংকারের সংসারে হানা দেওয়া কোভিড–১৯ বা করোনাভাইরাসে আমরা দিশেহারা। জীবনঘাতী ভাইরাস হান দেওয়ার আগ পর্যন্ত পৃথিবীব্যাপী এমন একটা ভাব তৈরি হতে শুরু করেছিল, যেন আমরা সবকিছু জয় করে ফেলেছি। এমনকি সংক্রমণের প্রাথমিক পর্যায়ে বিশ্ব মোড়লদের করোনা নিয়ে হাসি–তামাশা আমাদের এমন ধারণা করতে বাধ্য করেছিল এটা আসলে তেমন কিছু না। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, আমি করোনা রোগীদের সঙ্গে হাত মেলাব। আমাদের উচিত করোনাকে আমাদের গালে মেখে নেওয়া। মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসে তিনি বললেন, ‘আমার যেকোনো কিছুই ঘটে যেতে পারত।’

পুরাতন বার্তা…

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
© All rights reserved | Jamunar Barta

Desing & Developed BY লিমন কবির