সলঙ্গায় চলছে সর্বোচ্চ দামে তরমুজ কেনা বেচা

কাইয়ুম মাহমুদ আকাশ

একে তো রেকর্ড ভাংগা গরম, এর উপর চলছে মাহে রমজান। তাই তরমুজের এখন তুমল চাহিদা । একই সংঙ্গে সরবরাহেও পরছে টান, তাই এরমধ্যে  মৌসুমের সর্বোচ্চ দামে চলছে তরমুজ কেনা -বেচা । বৃহস্পতিবার  (২৯ এপ্রিল) সলঙ্গা ও হাটিকুমরুলের কয়েকটি খুরচা দোকান ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

প্রচণ্ড গরমে প্রশান্তি দিতে তরমুজের স্থান একটু উপরে ধরা চলে। তপ্ত দিনে ইফতারে তোর মত চান না এমন রোজাদারের দেখা মিলবে না হয়তো।

কিন্তু লোভনীয় এই ফলের দাম এখন অনেকটাই সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। খুচরা ব্যবসায়ীদের কেজি দরে তরমুজ বিক্রির স্বেচ্ছাচারিতা তরমুজকে এবার অনেকটাই দৃর্মূল্য  মূল করে রেখেছে বলে দাবি করে তাদের ।

আড়তদার এবং পাইকাররা জানিয়েছেন এবার তরমুজের ফলন আগের তুলনায় অনেকটাই ভালো,  ভালো দাম পেয়েছে ।

চাহিদার কারণে এবার পুরো মৌসুমেই তরমুজের দাম অন্য বছরের তুলনায় বেশি ছিল।  লকডাউন থাকলে পণ্য পরিবহনে বাধা না থাকায় তরমুজ বেচা-বিক্রিতে  তেমন কোনো সমস্যা হয়নি।

আড়তে বা  পাইকারি বাজারে তরমুজের শ’ (১০০)টি হিসাবে বিক্রি হয়। কিন্তু খুচরা বাজারে ক্রেতাকে কিনতে হচ্ছে কেজি হিসাবে ।

মঙ্গলবার সলঙ্গা ও হাটিকুমরুল বাজারগুলোতে দোকান মালিকদের কাছ থেকে জানা যায়, বাজার অনুযায়ী মোটামুটি আকারভেদে ১০হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৪৫ হাজার টাকা দরে তরমুজের শ’ বিক্রি হচ্ছে।
খুচরা বাজারে তরমুজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে ।

সাধারণ মানুষের দাবী ৩ থেকে ৪ কেজি ওজনের একটি তরমুজ কিনতে যদি: ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা লাগে তাহলে কিভাবে সুস্থ ভাবে চলা সম্ভব। হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের প্রতিদিনের স্বপ্ন। যে টাকা প্রতিদিন একটি দিনমজুরের পারিশ্রমিকের  দাম তার চেয়ে বেশি টাকা দিয়ে কিনতে হচ্ছে একটি তরমুজ।

এভাবে চলতে থাকলে, কিভাবে  সুস্থ ভাবে চলতে পারে একটি পরিবার।

ক্রেতারা বলেন, প্রচণ্ড গরমে সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে তরমুজ একটা স্বাস্থ্যকর ফল। তারপরও রোজার কারণে বাধ্য হয়ে কিনছি । হয় সরকার সবক্ষেত্রে কেজি দরে তরমুজ বিক্রির নিয়ম করে দিক অথবা যারা কেজিতে তরমুজ বিক্রি করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করুক।

পুরাতন বার্তা…

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved | Jamunar Barta

Desing & Developed BY লিমন কবির