ঘর জমি নেই কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের ভিক্ষুকের টাকা নির্বাচন করে জয়

আরিফ হোসেন, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ
কামারখন্দ উপজেলার নবাগত চেয়ারম্যান এস এম শহিদুল্লাহ সবুজ এর নেই কোন জমি নেই কোন ঘর। স্থানীয় সুত্রে যানা যায় এই চেয়ারম্যান এর গ্রামের বাড়ি বড়ধুলে থাকার মত কোন জায়গা জমি কিছুই নাই।
মঙ্গলবার বেলা ১১ ঘটিকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তার কোন কিছু অবশিষ্ট নাই। স্থানীয় এলাকাবাসীরা জানায়, তার তো অনেক জায়গা জমি ছিল কিন্তু ঋনের দায়ে পরে জায়গা জমি সব কিছু বিক্রি করতে হয়েছে। কেউ কেউ আবার একটুখানি জায়গা দেখিয়ে দিলে কেউ একজন এসে বলে উঠছে, কোনটা তার জায়গা ? এটা অন্যজনের জায়গা। এটা আগে তার ছিল কিন্তু কিছুদিন আগে বিক্রি করে দিয়েছে।
বড়ধুল গ্রামের সাবেক মেম্বর ইসমাইল হোসেন (৭০) জানান, তার তো ভিটা বাড়ি কিছুই নাই। সে সিরাজগঞ্জ এস এস রোডে জানবক্স এর বিল্ডিংয়ের তিন তলায় ভাড়া থাকে। আবার নাকি বাড়ি ওয়ালাও ভাড়া নেয় না। কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাড়ি ওয়ালা জানে যে তার কাছে বাড়ি ভাড়া দেওয়ার মত কোন সামর্থ নাই, তাই নাকি ফ্রিতেই থাকতে দেয় এই সৎ লোকটিকে।
অপরদিকে একই গ্রামের আঃ আউয়াল জানান, এর আগে সে ৫ বছর চেয়ারম্যান ছিল। তারপরও কোন বাড়িঘর করতে পারে নাই। তার বাড়িই নাকি ছিল উপজেলা অফিস। সেই জন্যই উপজেলার সকল জনগন দলমত নির্বিশেষে তাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করেছে। সে যদি অন্য চেয়ারম্যানদের মত বাড়ি করার চিন্তা থাকতো তাহলে এই গ্রামে তার ১০তলা বাড়ি থাকতো। আবার চেয়ারম্যান হওয়ার কথা চিন্তাও করতে পারতো না।
সে বিষয়ে নবাগত চেয়ারম্যান এস এম শহিদুল্লাহ সবুজকে বলা হলে তিনি বলেন, আমার বাড়ি দিয়ে কি করবেন, আমাকে কাউকে খুজতে হবে না আমিই সবার দ্বারে দ্বারে যাবো। তারপরও যদি কারও আমাকে প্রয়োজন হয় তাহলে সরাসরি আমার অফিসে আসলে আমাকে পাবে। আমার অফিসে কোন পর্দা থাকবে না। আমি ভিক্ষুক এর দেওয়া ৭২ টাকা আর ৫ শের চাউল দিয়ে শুরু করে জনগনের টাকা দিয়ে নির্বাচন করেছি। আর জনগন আমাকে দিয়ে কোন সুফল পাবে না তা তো হয় না। তাই আমার বাড়ি ঘড়ের কোন দরকার নাই, শুধু বিপদে পরলে স্মরণ করবেন।

Recent Comments

    © All rights reserved © 2018-19  Jamunarbarta.Com

    Desing & Developed BY লিমন কবির