সিরাজগঞ্জে দুই স্কুলছাত্রীকে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা কনের পিতা ও বরের পিতার অর্থদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় একই দিনে দুই স্কুল ছাত্রীকে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা করেছেন সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আনিসুর রহমান।
শুক্রবার রাতে সিরাজগঞ্জ সদরের রতনকান্দি ইউনিয়নের দত্তবাড়ী গ্রামের নবম শ্রেণীর মাদ্রাসার ছাত্রী মোছাঃ মাসুমা আক্তার (১৬) এবং কালিয়া হরিপুর ইউনিয়নের চর বনবাড়ীয়া গ্রামে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ জুই খাতুন (১৩) এর বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়।
আদালত সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিরাজগঞ্জ সদরের রতনকান্দি ইউনিয়নের দত্তবাড়ী সংগীয় ফোর্স নিয়ে কনের কনের বাড়ীতে উপস্থিত হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কনের বাড়ীতে সদরের দত্তবাড়ী গ্রামের মোঃ রফিকুল ইসলাম এর মেয়ে মাসুমা আক্তার (১৬) এর সাথে বর রায়গঞ্জ উপজেলার তেবাড়ীয়া গ্রামের মোঃ শাজাহান আলীর এর পুত্র রেজাউল করিম (২৩) এর বিয়ের আয়োজন চলছিল।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে কাজী পালিয়ে যায়। কনে স্থানীয় মাদ্রাসার নবম শ্রেণীর ছাত্রী। কনে অপ্রাপ্তবয়স্ক। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্যবিবাহ বন্ধ করে কনের বাবার কাছ থেকে কনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না বলে মুচলেকা নেন এবং কনের পিতা রফিকুল ইসলাম ও বরের পিতা শাজাহান আলী প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন। এরপর রাতে কালিয়া হরিপুর ইউনিয়নের চরবনবাড়ীয়া গ্রামে বাল্যবিবাহ বন্ধে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত।
বরের বাড়ীতে কনে চরবনবাড়ীয়া গ্রামের মোঃ জহুরুল ইসলাম এর কন্যা জুই খাতুন (১৩) এর সাথে বর একই গ্রামের মোঃ ছাকাওয়াত শেখ এর পুত্র মোঃ আলামিন শেখ (২০) এর বিয়ের আয়োজন চলছিল। কনে স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্যবিবাহ বন্ধ করে কনের পিতা ও বরের পিতা কাছ থেকে বর ও কনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিবাহ দিবেন না বলে মুচলেকা নেয়া হয়। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন পেশকার আঃ সাত্তার ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যবৃন্দ।

Recent Comments

    © All rights reserved © 2018-19  Jamunarbarta.Com

    Desing & Developed BY লিমন কবির